সোমবার, অক্টোবর ১৫

আমার বিদ্যালয়


গিয়াস উদ্দিন ফারুকী ।
~~~~~~~~~~~~~
আমার বিদ্যালয় ,
আমার অহংকার-
শত বৎসরের বিদ্যাভূমি –
তুমি শত কোটি মানুষের প্রাণ…।
শিক্ষা গুরু, বিদ্যা গুরু ,
যাধব বাবুর এ প্রতিষ্ঠান-
সালাম জানাই তোমায় শিক্ষা গুরু –
তুমি আমার অহংকার….।
বাবু,প্রতি দিন ফুটে কত ফুল ,
তোমার আঙিনায়-
তোমার একটি ফুল ও যায় নেই ঝরে ,
সুবাস ছড়ায় আজ বিশ্ব জুড়ে ।

অনন্ত রক্ষিত, নক্ষত্র সেন –
তোমাদের ভুলি নেই আমরা ।
উজাড় করে দিয়েছো ঢেলে ,
তোমাদের যত সব ছিল জ্ঞানের ভান্ডার ।
তোমাদের হাতে গড়া –
লক্ষ লক্ষ নক্ষত্র
আজ আলো ছড়ায় বিশ্ব জুড়ে ।

শত বর্ষের এ দিনে ,
করিম স্যারের কথা –
তোমরা কেউ যেও না ভুলে ।
এক মিনিট নীরবতা পালন করে –
সূরা ফাতেহা পাঠ শেষে দোয়া বকশিস দিও
স্যারের রূহের তরে ।

আমার বিদ্যালয়,
তুমি আমার অহংকার ।
ধন্য হয়েছি আমি তোমার ছায়া তলে –
ধন্য আমি পেয়ে ঠাই…।
আবার জনম হয় যদি গো আমার,
আমি ছাত্র বেসে আসতে চাই?
তোমার আঙিনায় ।
সেদিন ফুলে ফুলে আমায় সাজিয়ে দিও,
তোমার ডালে ফুটে যত ফুল…..।

যধু বাবুরে বলে দিও ,
আবু মোহাম্মদ স্যার –
আবার আসতে চায়,
ছাত্র বেসে… এ আঙ্গিনায় ।
একটি করে ফুলের মালা পরিয়ে দিও –
দলিলুর রহমান, ও সোলতান স্যারের গলে …!
ফুলে ফুলে ভরে দিও –
শত বৎসরের যাধব বাবুর এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।
সেদিন হাতে তাঁলি দিবো আমি –
মঞ্চের পাশে দাড়িয়ে..
যখন আমার শিক্ষা গুরু,
শাহাজাহান ও তাজু স্যার মঞ্চে উঠবে -হেঁসে
বীরের বেসে ।
সিরাজ স্যার, পেয়ার আহম্মদ স্যার কে করি ও তোমরা-
নিমন্ত্রণ শত বৎসরের দিনে ।
হুজুর স্যার কে বলে দিও
করতে দোয়া –
যত ছাত্র শিক্ষক পরলোকগমন করেছে ,
এ বিদ্যালয়ে পড়ে ।
মন্নান স্যার কে করি ও স্বরন –
তাহার নাম টি তোমার ভুলে যেও না কেউ,
যদিও তিনি হাতে পেয়েছেন অল্প সময় ।

সুবাস দাদা তোমার জন্য রেখে গেলাম –
অনেক অনেক শুভেচছা..।
আমার বিদ্যালয়, তুমি আমার অহংকার,
শত বৎসরের বিদ্যাভূমি,
তুমি শত কোটি মানুষের প্রাণ ।

আমি কবি ভুলো মনা –
লিখতে ভুলে গেছি যাদের নাম,
ক্ষমা করে তোমরা দিও আমায় !
তোমাদের বাকি সবের জন্য রেখে গেলাম –
শত বৎসরের এ দিনে অনেক অনেক শুভেচ্ছা ভালোবাসা ।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *