মঙ্গলবার, জুন ১৯

কেন্দ্র নকলমুক্ত রাখাসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় জেলা প্রশাসনের নানা উদ্যোগ

সিএন নিউজ২৪ খুলনা প্রতিনিধিঃ-

সারাদেশের ন্যায় খুলনায় এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হচ্ছে আগামীকাল ১ ফেব্র“য়ারি। পরীক্ষার প্রথম দিন এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বাংলা ১ম পত্র (আবশ্যিক), দাখিল পরীক্ষার্থীদের কুরআন মাজিদ ও তাজবিদ, এসএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষার্থীদের বাংলা-২ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত পরীক্ষা চলবে। পরীক্ষা শেষ হবে আগামী ৩ মার্চ। এদিকে পরীক্ষা কেন্দ্র নকলমুক্ত ও বিভিন্ন সমস্যা নিরসনে খুলনা জেলা প্রশাসন নানামুখি উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, পরীক্ষা কেন্দ্রের আশপাশে ২০০ গজের মধ্যে ফটোস্ট্যাস্ট মেশিন বন্ধ রাখার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারগণকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। পরীক্ষা চলাকালে কোন বহিরাগত বা পরীক্ষার সাথে সংশ্লি¬ষ্ট নয় এমন ব্যক্তি কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবে না। পরীক্ষার্থীদের জন্য প্রতিটি কেন্দ্রে মেডিকেল টিম নিয়োগের জন্য ইতোমধ্যে সিভিল সার্জনকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। এছাড়া এসএসসি পরীক্ষায় যে বিষয়ে পরীক্ষা সে বিষয়ের কোন শিক্ষককে ঐদিন পরীক্ষা হলে কক্ষ পরিদর্শক হিসেবে নিয়োগ দেয়া যাবে না। আর দাখিল পরীক্ষার ক্ষেত্রে আরবী বিষয়সমূহের পরীক্ষার দিনগুলোতে সাধারণ শিক্ষকদের এবং সাধারণ বিষয়সমূহের পরীক্ষার দিনগুলোতে আরবী শিক্ষকদের কক্ষ পরিদর্শক হিসেবে নিয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।
সূত্র জানিয়েছে, কেন্দ্র সচিবের নিজ তত্ত্বাবধানে পরীক্ষার প্রশ্নপত্রসহ গোপনীয় কাগজপত্র কেন্দ্রে নিতে হবে। ভ্যেনুসমূহে প্রশ্নপত্রের ট্রাংক বহন করা যাবে না। কোন পরীক্ষার্থী প্রবেশপত্র ও রেজিস্ট্রেশন কার্ড ব্যতীত কোন বই খাতা, মোবাইল ফোন, কোন ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস অথবা অন্য কোন কাগজপত্র পরীক্ষা কেন্দ্রের অভ্যন্তরে নিতে পারবে না। উল্লি¬খিত উপাদান সমূহ পরীক্ষার্থীর নিকট পাওয়া গেলে অসদুপায় অবলম্বন করেছে বলে গণ্য হবে এবং বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। পাশাপাশি পরীক্ষা কেন্দ্রসমূহে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হবে। এ লক্ষে ইতোমধ্যে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) খুলনাকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্য বিশিষ্ট ভিজিলেন্স টিম গঠন করা হয়েছে।
এদিকে সংশ্লি¬ষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এ বছর জেলা ও মহানগরীসহ ৮৪টি কেন্দ্রে ৩৩ হাজার ৬৮৬ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেবে। এর মধ্যে এসএসসিতে ৫৩টি কেন্দ্রে ২৭ হাজার ৮৪৮ জন, দাখিলে ১৩টি কেন্দ্রে ৩ হাজার ৫৮৯ জন ও ভোকেশনালে ১৮টি কেন্দ্রে ২ হাজার ২৪৯ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে। গেল বছর জেলা ও মহানগরী মিলে ৮১টি কেন্দ্রে এসএসসি, দাখিল ও এসএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় ৩০ হাজার ৫৭২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। গত বছরের তুলনায় এ বছর পরীক্ষার্থী বেড়েছে ৩ হাজার ১১৪ জন। জেলার ৫৪৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে এ বছর পরীক্ষায় অংশ নিবে। এর মধ্যে এসএসসি ৩৯৬টি, দাখিল ১১৫টি ও এসএসসি ভোকেশনালে ৩৩টি।
এ বছর মহানগরীর এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রগুলো হলো, খুলনা জিলা স্কুল, দৌলতপুর মহাসীন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, খুলনা পাবলিক কলেজ, বঙ্গবাসী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, নৌবাহিনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, গভঃ ল্যাবরেটরী হাইস্কুল এন্ড কলেজ, খুলনা সরকারি বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, খুলনা সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজ, হাজী ফয়েজ উদ্দিন উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, সরকারি করোনেশন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ফাতিমা উচ্চ বিদ্যালয়, বি কে ইউনিয়ন ইনস্টিটিউশন, খুলনা কলেজিয়েট স্কুল, রোটারী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পল্ল¬ীমঙ্গল মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সরকারি ইকবাল নগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, এইচ আর এইচ প্রিন্স আগা খান মাধ্যমিক বিদ্যালয়, খালিশপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, আফিল উদ্দিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দৌলতপুর মুহসিন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, আর আর এফ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, খানবাড়ি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়।
উপজেলার কেন্দ্রগুলোর মধ্যে রয়েছে, দাকোপের চালনা বাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, বাজুয়া ইউনিয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পাইকগাছার পাইকগাছা সরকারি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কপিলমুনি সহচারী বিদ্যা মন্দির, আর কে বি কে হরিশচন্দ্র কলেজিয়েট ইনস্টিটিউট, চাঁদখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, গড়ইখালী আলমশাহী ইনস্টিটিউট, পাইকগাছা সরকারি মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, কপিলমুনি মেহেরুন্নেছা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বটিয়াঘাটার কেন্দ্রগুলো হলো বটিয়াঘাটা থানা হেড কোয়াটার মাধ্যমিক বিদ্যালয়, খারাবাদ বাইনতলা স্কুল এন্ড কলেজ, জলমা চক্রাখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ডুমুরিয়ার কেন্দ্রগুলো হলো এন জি সি ও এন সি কে মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শাহপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দিব্যপল্ল¬ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সাহস নোয়াকাটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ফুলতলার কেন্দ্রগুলো হলো ফুলতলা রি-ইউনিয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক মাধ্যমিক বিদ্যালয়, জামিরা বাজার মাধ্যমিক বিদ্যালয়, শিরোমনি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, রূপসার কেন্দ্রগুলো হলো কাজদিয়া উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বেলফুলিয়া ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, শিয়ালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দিঘলিয়ার কেন্দ্রগুলো হলো এম এম মজিদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সেনহাটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কয়রার কেন্দ্রগুলো হলো কয়রা মদিনাবাদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, আমাদী জায়গীরমহল তকিমুদ্দিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ভি কে এস গিলাবাড়ী পাঞ্জুগাজী ইউনাইটেড একাডেমী, সুন্দরবন মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় ও তেরখাদার ইখড়ী কাটেংগা এফ এইচ মাধমিক বিদ্যালয়।
জেলার দাখিল পরীক্ষার কেন্দ্রগুলো হলো খুলনা আলিয়া মাদ্রাসা (খুলনা), দারুল কোরআন সিদ্দিকিয়া কামিল মাদ্রাসা (খুলনা), শিরোমনি আলীম মাদ্রাসা (ফুলতলা), সামন্তসেনা দারুস সুন্নাত সিদ্দিকীয়া আলিয়া মাদ্রাসা (রূপসা), তেরখাদা ইখড়ি দাখিল মাদ্রাসা (তেরখাদা), মধুগ্রাম ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা (ডুমুরিয়া), চুকনগর হাসানিয়া দাখিল মাদ্রাসা (ডুমুরিয়া), চালনা বিল¬ালিয়া আলীম মাদ্রাসা (দাকোপ), পাইকগাছা আলিম মাদ্রাসা, হাবিব নগর এমকেজিএসবি ফাজিল মাদ্রাসা (পাইকগাছা), কয়রা উত্তরচক আমিনীয়া কামিল মাদ্রাসা, কয়রা মদিনাবাদ দাখিল মাদ্রাসা, ঘুঘরাকাটি ফাজিল মাদ্রাসা (কয়রা)।
জেলায় এসএসসি (ভোকেশনাল) কেন্দ্রগুলো হলো কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, টেক্সটাইল ভোকেশনাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট, বঙ্গবাসী মাধ্যমিক হাইস্কুল, সেন্ট জেভিয়ার্স হাইস্কুল, আফিল উদ্দিন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ডুমুরিয়া এনজিসি এ্যান্ড এনসিকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়, আন্তর্জাতিক কারিগরি বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ ও গবেষণা কেন্দ্র, জলমা চক্রাখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, চালনা কেসি পাইলট কলেজিয়েট স্কুল, কয়রা মদিনাবাদ স্কুল এন্ড টেকনিক্যাল কলেজ, হাড়ীখালি ভোকেশনাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউট, শহীদপুর খান এ সবুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় (তেরখাদা), কেডি সাহাপাড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বাজুয়া ইউনিয়ন হাইস্কুল (দাকোপ), শাহাপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় (ডুমুরিয়া), ফুলতলা রি-ইউনিয়ন হাইস্কুল, ফাতমো মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যলয় (দিঘলিয়া) ও কাজদিয়া উচ্চ বিদ্যালয় (রূপসা)।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *