বুধবার, সেপ্টেম্বর ২৬

ফ্রান্স-বেলজিয়ামের সেমিফাইনাল ইতিহাস

অনলাইন ডেস্ক-

আজ সেন্ট পিটার্সবার্গ স্টেডিয়ামে সেমিফাইনালে ফ্রান্সের মুখোমুখি হচ্ছে বেলজিয়াম। বিশ্বকাপের ইতিহাসে বেলজিয়াম তাদের দ্বিতীয় সেমিফাইনাল খেলছে। অন্যদিকে ফ্রান্স তাদের ষষ্ঠ সেমিফাইনাল খেলতে মাঠে নামছে।

ফ্রান্স
১৯৫৮ সালে প্রথমবারের মতো কোন টুর্নামেন্টে সেমিফাইনাল খেলে ফ্রান্স। যার পুরো কৃতিত্ব ছিল জাস্ট ফন্টেইনের। সেবার জাস্টের এক আসরে রেকর্ড সর্বোচ্চ ১৩ গোলের কল্যাণে শেষ চারে ওঠে ফ্রান্স। কিন্তু সেমিতে ব্রাজিলের কাছে ৫-২ গোলে হেরে ফাইনাল খেলার স্বপ্ন ভেঙ্গে যায়। সেই ম্যাচে ৫টি গোলের মধ্যে ৩টি গোলই করেছিলেন জীবন্ত কিংবদন্তী পেলে।
এরপর ২৪ বছর পর ১৯৮২ সালে আবারও ফ্রান্স ফাইনাল খেলার স্বপ্ন হারায়। পেনাল্টিতে জার্মানির কাছে হেরে বিদায় নেয় ফ্রান্স।
এর ঠিক চার বছর পর আবারও সেমি খেলার সুযোগ আছে ফ্রান্সের। কিন্তু সেবারও জার্মানদের কাছে ২-০ গোলে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয় তারা।

১৯৯৮ সালে ফ্রান্স জয় করে দুঃস্বপ্নের সেমিফাইনাল। নিজেদের দেশে বিশ্বকাপ আয়োজন করে সেবার শুধু সেমিফাইনাল জয় করেনি, বিশ্বকাপের শিরোপাটাও জয় করেছে ফ্রান্স। বর্তমান কোচ দিদিয়ের দেশম ছিলেন সে সময়ের ফান্সের নেতৃত্বে। সেই দেশমের সামনে এখন কোচ হিসেবে শিরোপা জয়ের হাতছানি। সামনে রয়েছে শুধুমাত্র সেমিফাইনাল ও ফাইনাল ম্যাচটি।

বেলজিয়াম
১৯৮৬ সালে একমাত্র সেমিফাইনাল খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে বেলজিয়ামের। সেমিতে আর্জেন্টিনার কাছে হেরে বিদায় নিতে হয় তাদের। দিয়াগো ম্যারাডোনার জোড়া গোলে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে পড়তে হয় রেড ডেভিলরা। সেই সঙ্গে ভেঙ্গে যায় প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন।

সেমি ফাইনালে হেরে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে ফ্রান্সের মুখোমুখি হয় বেলজিয়াম। কিন্তু বেলজিয়াম শুরুতে এগিয়ে থাকলেও শেষ পর্যন্ত অতিরিক্ত সময়ে ৪-২ গোলে পরাজয় বরণ করতে হয় ফ্রান্সের কাছে।
ব্রাজিল বিশ্বকাপেও শেষ আটে ছিল বেলজিয়াম। কিন্তু আর্জেন্টিনার কাছে হেরে সেবার সেমি ফাইনাল খেলার স্বপ্নকে বিসর্জন দিতে হয়েছে তাদের। গঞ্জালো হিগুয়াইনের এক মাত্র গোলে তাদেরকে বিদায় নিতে হয় ব্রাজিল বিশ্বকাপ থেকে।

২০১৪ সালে খেলা খেলোয়াড়দের মধ্যে এবার রাশিয়া বিশ্বকাপ খেলছে ১৫ জন খেলোয়াড়। সেই ১৫ জনের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে সেমিফাইনালে ফ্রান্সকে হারিয়ে ফাইনাল খেলার স্বপ্ন দেখছে লুকাকু-হেজার্ডরা।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *