শনিবার, আগস্ট ১৮

বিস্ফোরক সংকটে মধ্যপাড়া খনির পাথর উত্তোলন বন্ধ

রুহিয়া প্রতিনিধিঃ
দিনাজপুরের মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনিতে শনিবার (২ জুন) থেকে বিস্ফোরক দ্রব্য সরবরাহ সংকটের কারনে পাথর উত্তোলন বন্ধ হয়ে গেছে। সেই সাথে খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসি প্রায় ৬শ’ শ্রমিককে ছুটিতে পাঠিয়েছে।খনির উদ্ভুত পরিস্থিতিতে পাথর খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী এস,এম নুরুল আওরঙ্গজেব এর ব্যবস্থাপনার অদক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

জানা গেছে, চুক্তি অনুয়ায়ী পাথর উৎপাদন কাজে অতি প্রয়োজনীয় বিস্ফোরক দ্রব্য (অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট) সরবরাহ করবে খনি কর্তৃপক্ষ। কিন্তু খনি কর্তৃপক্ষ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসিকে চাহিদা মোতাবেক সঠিক সময়ে বিস্ফোরক দ্রব্য সরবরাহ না করায় প্রয়োজনীয় মালামাল বহু পূর্বেই শেষ হয়ে যাওয়ার ফলে খনির ভু-গর্ভে উত্তোলন যোগ্য পর্যাপ্ত পাথর না থাকার কারনে ২রা জুন থেকে উৎপাদন সংশ্লিষ্ট সকল অপারেশনাল কাজ বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসি। তবে জরুরী ও খনির ভু-গর্ভে রক্ষনাবেক্ষন কাজ চালু থাকবে।একটি সুত্রে জানা গেছে, গত বছরের ডিসেম্বর মাসে এক পত্র মারফতে এমজিএমসিএলকে অবহিত করা হয় যে, এপ্রিল মাসের মধ্যে বিস্ফোরক অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট সরবরাহ না করা হলে উৎপাদন কার্যক্রম হুমকির মুখে পড়বে।

কিন্তু গত এপ্রিল মাসে ও সম্পুর্ণ মে মাসেও খনি কর্তৃপক্ষ বিস্ফোরক সরবরাহের ব্যবস্থা না করায় তাদের অনুরোধে জিটিসি স্বল্প সংখ্যক বিস্ফোরক দিয়ে উৎপাদন কার্যক্রম সচল রেখেছিল। খনি কর্তৃপক্ষ মে মাসে কোন প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না নেওয়ার ফলে বিস্ফোরক সংকটে জিটিসি গত সপ্তাহ খানেক যাবৎ বিস্ফোরক বিহীন অপারেশনাল কার্যক্রম পরিচালনা করে শেষে উৎপাদন সহ উৎপাদন সংশ্লিষ্ট সকল অপারেশনাল কার্যক্রম বন্ধ করতে বাধ্য করা হলো।মধ্যপাড়া পাথর খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্টান জার্মানীয়া-ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি)’র নির্বাহী পরিচালক জাবেদ সিদ্দীকি জানান, খনির ইতিহাসে পাথর উৎপাদনের রেকর্ড তৈরী করেছে। প্রতিমাসে ১ লক্ষ ২০ হাজার মেট্রিক টন পাথর উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে বিগত মাসগুলোতে ধারাবাহিক ভাবে মাসিক ১ লক্ষ টনের অধিক পাথর উৎপাদন করছে। সেই সঙ্গে খনির নতুন স্টোপ নির্মানসহ উন্নয়ন কাজ চালিয়ে যাচ্ছে তখন মাইন অপারেশনাল কাজে বিভিন্ন ধরনের প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হতে হচ্ছে জিটিসিকে।

তারপরেও মধ্যপাড়া পাথর খনির উন্নয়ন সহযোগি হিসেবে জিটিসি’র কার্যক্রম খনিটিকে সরকারের লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।মধ্যপাড়া পাথর খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রকৌশলী এস,এম নুরুল আওরঙ্গজেব জানান, মধ্যপাড়া পাথর খনির উৎপাদন বন্ধের ব্যপারে তিনি কিছুই জানেন না। আগামী ৬ জুনের মধ্যে বিস্ফোরক দ্রব্যের (অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট) একটি চালান আসবে। বিস্ফোরক দ্রব্য মজুদ রয়েছে তা সমস্যা হওয়ার কথা নয়। তবে তিনি খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসির সাথে কথা বলে বিষয়টি জানবেন।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *