বৃহস্পতিবার, মে ২৪

যৌবনের ব্যাপারে নসিহা।

শরীফ উদ্দিন ভূঁইয়া-

আলহামদুলিল্লাহি ওয়াহদাহু ওয়াস সলাতু ওয়াস সালামু আ’লা মাল্লা নাবিয়্যা বা’দাহ । আম্মা বা’দ–

হে যুবক-যুবতী! যে চেহারাখানা বার বার আয়নায় দেখো, আর মনে মনে উৎফুল্ল হও, “বাহ! কত সুন্দর! কত সুন্দরই না আমি!” একবারও কি ভেবে দেখেছ তোমার সুন্দর এই চেহারার সৃষ্টিকর্তার কথা?! কোন মহান রূপকার তোমাকে দিয়েছেন এমন রূপ-লাবণ্য! মুখে কোন দাগ পড়লে আয়নায় দেখে দেখে আফসোস কর, “আহ! যদি এই দাগটা না থাকত, তবে আমাকে এমন সুন্দর দেখাত!” অথচ, সেই মহান কারিগরের কথা একটি বারও চিন্তা করার প্রয়োজনবোধ করোনি যিনি তোমাকে কাদামাটি থেকে সৃষ্টি করে এমন রূপ দিয়েছেন! কত মহান রূপকার তিনি! সুবহানাল্লাহ! আজ নিজের চেহারা নিয়ে তুমি এমন অহংকার করছ যেন কখনো তোমার মৃত্যুই হবে না! তোমার রূপ-যৌবন চিরকাল তোমাকে আনন্দে রাখবে! হায় আফসোস! আচ্ছা, ধরে নিলাম তোমার মৃত্যু হবে না। তবে দুনিয়ার সাধারণ নিয়মানুযায়ী তুমি অবশ্যই বৃদ্ধ হবে। সেদিন তোমার সুন্দর রূপে কোন জৌলুস থাকবে না। তোমার চামড়া ঢিলে হয়ে যাবে।তখন, তোমার না থাকবে যৌবন আর না তুমি অহংকার করতে পারবে।

আর, এটা তো নিশ্চিত যে, তুমি একদিন অবশ্যই মৃত্যুবরণ করবে । সেদিন তোমার রূপ, তোমার যৌবন মাটিতে দাফন হয়ে যাবে অর্থাৎ মাটির সাথে মিশে যাবে তোমার সুন্দর দেহ। তাও, তোমার জন্য ভালো হতো যদি মাটিতে মিশেই যেত, শুধু দুনিয়ার জীবন অতিবাহিত করার পর তোমার আর কোন ‍অস্তিত্ব না থাকত । কিন্তু না , সেই মহান সত্তার কসম, যিনি মানুষকে মাটি হতে সৃষ্টি করেছেন, অতঃপর তিনি অবশ্যই আবার মাটি থেকে মানুষকে উঠাবেন। তোমার ক্ষেত্রেও এর ব্যাতিক্রম হবে না। শুধু এতটুকুতেই শেষ নয় ।অতঃপর, হিসাব নেওয়া হবে দুনিয়ায় অতিবাহিত করা তোমার জীবনের প্রতিটি মুহূর্তের ।তখন হয়ত তোমার এই রূপই তোমার যন্ত্রণার কারণ হবে। কেননা এই রূপের কারণেই তো তুমি দুনিয়ার মোহে ডুবে ছিলে, নিমজ্জিত ছিলে অশ্লীলতায়। তোমার যৌবন পরকালে বেদনার কারণ হবে । এই যৌবনের চাহিদা মেটানোর জন্যই তো তুমি গোনাহে লিপ্ত ছিলে, ভুলে ছিলে তোমার সৃষ্টিকর্তার কথা।

অতএব, তুমি যে রূপ-যৌবনের কারণে উৎফুল্ল, যে কারণে যৌবনের অধিকাংশ সময় ব্যায় করেছ হাসি-তামাশায় , অশ্লীলতায় , মনে রেখো অচিরেই তুমি এর প্রতিফল পাবে। আর এটাও মনে রেখো তোমার এই যৌবন অতি ক্ষণস্থায়ী। জীবিত থাকলে যা বৃদ্ধ হয়ে যায় আর মরে গেলে যার কোন মূল্যই নেই। সুতরাং, সাবধান হও! ক্ষণস্থায়ী এই রূপের জগতে ডুবে গিয়ে চিরস্থায়ী রূপ-লাবণ্যকে নষ্ট করো না। যেখানে তুমি এমন রূপের অধিকারী হবে যা তুমি কল্পনাও করোনি।আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে সঠিক বুঝ দান করুক ।। আমীন।।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *