মঙ্গলবার, জুন ১৯

রাজশাহীতে বাঁশের মাথায় আস্ত ছাগল!

এম এম এইচ রায়হানঃ- 

রাজশাহী মহানগরীর ডাঁশমারি জাহাজঘাট এলাকায় পদ্মার পাড়ে শুক্রবার বিকেলে বাঁশের মাথায় চোখ যায়। প্রথমে থ বনে যাওয়ার অবস্থা। বিশাল বাঁশের মাথায় আস্ত ছাগল ঝুলছে। আরো কয়েকজন উৎসুক মানুষের ভিড় সেখানে। কাছে গিয়ে দেখা গেলো আসলে সেটি জীবন্ত ছাগল না। ছাগলের চামড়ায় ভেতরে খড় পুরে বাঁশের মাথায় ছাগল আকৃতি করে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।
এমন কাজটি খাজা বাবার গরিবে নেওয়াজ মাজারের লোকজনের কাণ্ড। মাজারটির প্রতিষ্ঠাতা জাহাজঘাট এলাকার সাবান আলীর ছেলে মোহাম্মদ মোস্তফা। ওই মাজারে মোহাম্মদ মোস্তফার ভক্ত বজলু বলেন, আমাদের গুরু মোস্তফা বাবা। বাবার নানি জাহাজঘাট নদীর পাড়ে মাজারের জন্য জায়গাটি দান করেন। গুরু মোস্তফা মারা গেলে এই স্থানে তাকে দাফন করা হবে বলে জানান তিনি।
জাহাজঘাট এলাকার পদ্মার পাড়ে একটি জায়গা খাজা বাবার মাজার হিসাবে ব্যবহার করেন। সেখানে গুরু মোস্তফার নেতৃত্বে তাকে গুরু মেনে প্রায় ৩০ জন গুরু ভক্ত মুরিদ আছে। ২ থেকে ৩ বছর থেকে এলাকার কিছু মানুষ নিজেকে খাজা বাবার অনুসারি হিসাবে দাবি করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে।
প্রতিবছর এলাকার মানুষদের কাছে থেকে টাকা, চাল, ডাল, বিভিন্ন সামগ্রী নেয়া হয় খাজা বাবার মাজারের নামে। প্রতিবছর ওই স্থানে খাজা বাবার নামে ছাদকা হিসাবে একটি করে খাসি জবাই করা হয়। ওই রীতিনীতির অনুসরণ করে একটি ছাগল জবাই করা হয়। তারপরে আয়োজন করা হয় সিন্নির।
ছাগল জবাই করে সেই ছাগলের চামড়ার ভেতর খড় ঢুকিয়ে আস্ত একটি খাসি বানিয়ে তা বাঁশের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়। সঙ্গে খাজা বাবার চিহৃ হিসাবে একটি লাল পতাকা ঝুলানো হয়েছে ওই বাঁশের সাথে। ছাগলের চামড়ায় খড় পুরে বাঁশের মাথায় ঝুলানোর পেছনে কোন বিশেষ ধরনের কারণ আছে কি না সে বিষয়ে কেউ কিছু বলতে পারেনি।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *