শুক্রবার, আগস্ট ১৭

স্মার্টফোন আসক্তদের জন্য রাস্তায় আলাদা লেন

সিএন নিউজ আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ–

রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন একজন। চোখ তাঁর স্মার্টফোনের স্ক্রিনে। এভাবে চলতে চলতেই হোঁচট খাওয়া। বলুন তো, আজকালের যুগে এমন দৃশ্য কি বিরল? মোটেই না। বরং এমন ঘটনা আমাদের জীবনে অহরহই ঘটে। তবে তার জন্য রাস্তায় আলাদা লেন চালুর কথা ভেবেছে শুধু চীন। স্মার্টফোনে আসক্ত ব্যক্তিদের নির্বিঘ্নে চলাচলের জন্য সম্প্রতি দেশটির এক শহরের রাস্তায় বিশেষ লেন চালু করা হয়েছে।

এর আগে সাইকেল আরোহী বা পথচারীদের জন্য রাস্তায় আলাদা লেন চালুর কথা শোনা গেছে। তবে স্মার্টফোন আসক্ত ব্যক্তিদের জন্য আলাদা লেন এবারই প্রথম। এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, চীনের বাণিজ্যিক শহর জিয়ানে এই লেন চালু করা হয়েছে। মোবাইল ফোনে আসক্ত ব্যক্তিরা এই লেন ধরে নিশ্চিন্তে হাঁটতে পারবেন। উল্টো পথে আসবে না কোনো গাড়ি।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের খবরে বলা হয়েছে, একটি শপিং সেন্টার কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে তৈরি এই বিশেষ লেন ১০০ মিটার লম্বা ও ১ মিটার চওড়া। লেনে চীনা ও ইংরেজি ভাষায় সতর্কবাণী লেখা আছে। তাতে বলা হয়েছে, ‘স্মার্টফোনে আসক্ত ব্যক্তিদের জন্য’। রাস্তা থেকে আলাদা করতে ওই লেনে ভিন্ন রং করা হয়েছে। মূলত লাল, নীল ও সবুজ রং করা হয়েছে এই বিশেষ লেনগুলোতে। শপিং মল ঘিরেই এই লেন তৈরি করা হয়েছে। পথচারীদের সামলাতে নিয়োগ করা হয়েছে নিরাপত্তারক্ষীও।

অবশ্য এমন লেন চালু করা নিয়ে ভিন্ন মতও আছে। বেইজিং ইউথ ডেইলি জানিয়েছে, হাঁটার সময় পথচারীরা যেন মোবাইল ফোন ব্যবহার না করেন, সে জন্যই এমন লেন চালু করা হয়েছে। স্থানীয় শপিং মলের কিছু কর্মী এই দাবি করেছেন।
স্থানীয় অধিবাসীরা এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। তাঁরা বলছেন, এর ফলে পথচারীদের চলাচল আরও নিরাপদ হবে।

তবে বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, চীনের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এ নিয়ে বেশ সমালোচনা হচ্ছে। অনেকেই বলছেন, স্মার্টফোন আসক্ত ব্যক্তিরা রাস্তায় অন্ধের মতো হাঁটেন। এটা বাজে অভ্যাস। তাঁদের জন্য আলাদা লেন করার কোনো প্রয়োজন নেই।

গত বছর চীনে রাস্তা পার হতে গিয়ে গাড়ির ধাক্কা খেয়েছিল এক শিশু। তার মা স্মার্টফোনে চোখ বোলানোয় ব্যস্ত থাকায়, সন্তানকে সামলাতে পারেননি। এ নিয়ে ওই সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনা হয়েছিল। তবে সৌভাগ্যবশত অল্প কাটাছেঁড়াতেই রক্ষা পেয়েছিল শিশুটি।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *