শনিবার, ডিসেম্বর ১৫

ধর্ম ও জীবন

প্রচারের অভাবে নিভৃতে আয়ারল্যান্ডের মুসলমানরা

প্রচারের অভাবে নিভৃতে আয়ারল্যান্ডের মুসলমানরা

ক্যাথলিক গির্জার দেশ বলা হয় আয়ারল্যান্ডকে। দেশটিতে দ্রুত বিকাশমান ধর্ম হিসেবে ইতোমধ্যেই ইসলাম জায়গা করে নিয়েছে। আয়ারল্যান্ডে ৫০ হাজারের মতো মুসলমান বসবাস করেন। এটা মোট জনসংখ্যার ২ শতাংশ। তবে মুসলমানদের সংখ্যা ২০২০ সালে এক লাখে পৌঁছবে বলে আশা করা হচ্ছে। আয়ারল্যান্ডের প্রায় প্রত্যেক শহরেই মসজিদ ও মক্তব রয়েছে। আয়ারল্যান্ডের মুসলিম ছাত্রীরা হিজাব পরে স্কুলে যেতে পারে। সেখানে রয়েছে ইসলামি পোশাকের প্রচুর চাহিদা। সম্প্রতি আয়ারল্যান্ডের লিমেরিক শহরে এক বাংলাদেশি প্রথম ইসলামি পোশাকের দোকান খুলে বেশ নাম কামিয়েছেন। লিমেরিকে প্রায় দুই হাজারের অধিক মুসলমানের বাস। শহরটিতে ৪টি মসজিদ আছে। বর্তমানে আইরিশ বিশ্ববিদ্যালয় এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে মুসলিম শিক্ষার্থীদের পছন্দের গন্তব্যে পরিণত হয়েছে। আয়ারল্যান্ডের মুসলিম ছাত্র সংগঠনগুলো ইসলাম ও মুসলমানদের ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য প্রতিবছর ‘ইসলামিক
নামাজে একাগ্রতা অর্জন ও মনোযোগ বাড়ানোর আমল

নামাজে একাগ্রতা অর্জন ও মনোযোগ বাড়ানোর আমল

নামাজে একাগ্রতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কোরআন-হাদিসে এ সম্পর্কে অনেক তাগিদ করা হয়েছে। একাগ্রতার দু’টি অংশ রয়েছে- এক. নামাজে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ স্থির রাখা। দুই. মনোযোগ ও একাগ্রতা রক্ষা করা। এ দু’টি বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে যে নামাজ আদায় করা হয় তাকে একাগ্রতাযুক্ত নামাজ বলে। এ দু’টি বৈশিষ্ট্য অর্জন করার বিষয়ে ইসলামি স্কলাররা বলেছেন- এক. বাহ্যিক অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ স্থির রাখা। যেমন হাত, পা এবং শরীরকে নামাজের বাইরের কোনো কাজে ব্যবহার না করা। অনর্থক নড়াচড়া থেকে বিরত থাকা। সাহাবি হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, তোমাদের নবীকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যেন সাতটি (অঙ্গের) ওপর সিজদা করে এবং নামাজে চুল বা কাপড় না গুটায়। -সুনানে আবু দাউদ: ২/১৪ নির্ভরযোগ্য বর্ণনায় এসেছে, বিখ্যাত তাবেয়ি মুজাহিদ (রহ.) বলেন, হজরত আবু বকর সিদ্দিক (রা.)