সোমবার, সেপ্টেম্বর ২৪

স্বাস্থ্য

যে কোন কাটাছেঁড়া, অবহেলা করলেই হতে পারে মৃত্যু !

যে কোন কাটাছেঁড়া, অবহেলা করলেই হতে পারে মৃত্যু !

স্বাস্থ্য টিপস- শুধু লোহা, কাঁচ বা পেরেকে নয়,যে কোন কাটাছেঁড়াতেই আপনার শরীরে প্রবেশ করতে পারে প্রাণঘাতী ধনুষ্টংকার বা টিটেনাস এর জীবাণু। ধনুষ্টংকার বা টিটেনাস কি? টিটেনাস (Tetanus) একটি মারাত্মক প্রাণঘাতী ব্যাকটেরিয়া জনিত সংক্রমণ।এই ব্যাকটেরিয়াটির নাম ক্লসট্রিডিয়াম টিটানি (Clostridium tenani)। এই প্রাণঘাতী জীবাণুটির বাসস্থান হল মাটি,ধুলাবালি,ময়লা- আবর্জনা, লোহার মরিচা, বিভিন্ন প্রাণীর মলমূত্র ইত্যাদি। জীবাণুটি যে ভাবে শরীরে প্রবেশ করেঃ ১.লোহা, টিন,কাঁচ, পিন বা পেরেক ইত্যাদি দিয়ে হাত-পা কেটে গেলে। ২.শরীরের চামড়া গভীর ভাবে পুড়ে গেলে। ৩.হাড় ভেঙ্গে চামড়া ভেদ করে বের হয়ে গেলে। ৪.শরীরে দীর্ঘ দিনের ঘা থাকলে তার মাধ্যমে। ৫.মানুষ বা কোন প্রাণীর কামড় বা দংশনে ক্ষতের মাধ্যমে। ৬.ময়লাযুক্ত দুষিত সিরিঞ্জ ব্যবহার করলে। ৭.অস্বাস্থ্যকর ভাবে মহিলাদের গর্ভপাত করালে। ৮.বাচ্চা জন্মের পর নাড়ি কাটার সময়
অসহায়দের মাঝে পাটোয়ার প্রবাসী সমাজকল্যাণ সংস্থার ফ্রি চিকিৎসা সেবা প্রদান

অসহায়দের মাঝে পাটোয়ার প্রবাসী সমাজকল্যাণ সংস্থার ফ্রি চিকিৎসা সেবা প্রদান

মোঃ রবিউল হোসাইন (রাজু) নিজস্ব প্রতিবেদক (সিএন নিউজ২৪.কম) সবাই মানব কল্যাণে এগিয়ে আসি, মানবতার জয় হোক এ স্লোগানকে ধারন করে মানব সেবায় ক্ষুধামুক্ত পৃথিবী গড়ার লক্ষে, আত্মমানবতায় এগিয়ে আসা অসহায় দুঃখী মানুষের পাশে দাড়ানো প্রবাসীদের প্রাণের সংগঠন, পাটোয়ার প্রবাসী সমাজকল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে কুমিল্লার নাঙ্গলকোট উপজেলার হেসাখাল ইউনিয়নের পাটোয়ার গ্রামের গরিব অসহায়দের মাঝে, ফ্রি চিকিৎসা সেবা ও ঔষধ বিতরণের আয়োজন করে পাটোয়ার প্রবাসী সমাজকল্যাণ সংস্থা। বৃহস্পতিবার ৬ সেপ্টেম্বর সকাল ১১ টায় ওমরগঞ্জ বাজার সামছুন্নাহার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পাটোয়ার গ্রামের কৃতি সন্তান ডাঃ কাজি যোবায়ের হোসেনের মাধ্যমে প্রায় ৫০ টি অসহায় রোগীদের মাঝে ফ্রি চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়। নাঙ্গলকোট উপজেলার হেসাখাল ইউনিয়নের পাটোয়ার গ্রামের একঝাঁক যুবক তরুণ প্রবাসী যোদ্ধাদের সম্বনয়ে গঠিত পাটোয়ার প্রবাসী সমাজকল্যাণ সংস্
পুঁইয়ের পাতার পুষ্টিগুণ

পুঁইয়ের পাতার পুষ্টিগুণ

অনলাইন ডেস্ক- খুবই জনপ্রিয় একটি খাবার পুঁই শাক। গোটা বিশ্বে এর চাষ হয়। এর কাণ্ড, পাতা, বীজ- সবই খাওয়া যায়। তাছাড়া, পুঁই শাক নানা ধরনের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এটি পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ একটি খাবার। পুঁই শাকে প্রোটিন, ফ্যাট, ভিটামিন এ, সি, ই, কে, ফলিক অ্যাসিড, রিবোফ্লাভিন, নিয়াসিন, থায়ামিন এবং বিভিন্ন ধরনের খনিজ যেমন- ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম এবং আয়রন থাকে। আয়ুর্বেদিক চিকিৎসায় পুঁই পাতা বহু বছর ধরে ভাল ঘুমের জন্য ব্যবহার হয়ে আসছে। এই পাতা এক সময় গোসলের আধা ঘণ্টা আগে বেটে মাথায় লাগানো হতো ভাল ঘুমের জন্য। এছাড়া মাথা ঠাণ্ডা রাখা, ত্বকের সমস্যা, যৌন দুর্বলতা, আলসার এবং গর্ভবতী নারীদের চিকিৎসায় ব্যবহার হয় পুঁই পাতা। লিউকেমিয়া, মুখগহ্বরের ক্যানসারসহ বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় প্রতিষেধক হিসেবে পুঁই শাক ব্যবহার হয়ে আসছে। পুঁই শাকে রিঅ্যাকটিভ অক্সিজেন স্পিসিজ নামক এক ধরনের উপাদান থাকে যা বার্ধক্য রো
সেলুন!! অতঃপর একটি ভয়ংকর মরণ ফাঁদ!!

সেলুন!! অতঃপর একটি ভয়ংকর মরণ ফাঁদ!!

সিএন নিউজ২৪.কম,স্বাস্থ্য বিষয়ক টিপস। সেলুন বলতে এমন একটি দোকান বা স্থানকে বুঝায় যেখানে পেশাদার কর্মী নির্দিষ্ট টাকার বিনিময়ে ছেলেদের চুল-দাড়ি কাটা বা ত্বকের যত্ন নিয়ে থাকে।ছেলেদেরকে সাধারণত ১৫-২০ দিন পর পর চুল কাটাতে সেলুনে আসতেই হয়। এছাড়া দু-একদিন পরপর দাড়ি কাটতে বা ত্বকের যত্ন নিতে সেলুনে আসা প্রয়োজন। কিন্তু আপনি জানেন কি? এই সেলুনই হতে পারে একটি ভয়ংকর মরণ ফাঁদ!! সেলুনে চুল বা দাঁড়ি কামানোর সময় আমাদের চামড়া বা স্কিন কেটে যাওয়া খুব কমন এবং এর মাধ্যমে অন্যের কাছ থেকে আপনার শরীরে চলে আসতে পারে হেপাটাইটিস(Hepatitis), এইডস(AIDS) সহ আরো অনেক ভয়ংকর রোগের ভাইরাস। যে রোগ গুলো হলে আপনার মৃত্যু অবধারিত। হেপাটাইটিস- বি ভাইরাসের সঙ্গে আমরা কম বেশি সবাই পরিচিত। এ রোগ টি বর্তমানে খুব মারাত্মক আকার ধারণ করে চলছে। আর এ মারাত্মক রোগটি আপনার শরীরে প্রবেশ করতে পারে সেলুনের মাধ্যমে।   এ
পাকা কলার প্যাকে চুল হবে ঝলমলে!

পাকা কলার প্যাকে চুল হবে ঝলমলে!

অনলাইন ডেস্ক- পাকা কলা দিয়ে তৈরি প্যাক চুলে নিয়মিত ব্যবহারে চুল হয় সুন্দর ও সিল্কি। সহজেই ঘরে তৈরি করে নিন পাকা কলার চুলের প্যাক। যেভাবে তৈরি করবেন একটি পাকা কলা চটকে নিন। ১টি লেবুর রস মিশিয়ে মিহি করুন মিশ্রণ। প্রয়োজনে ব্লেন্ড করে নিতে পারেন। ১ টেবিল চামচ নারকেল তেল মিশিয়ে নেড়ে নিন। যেভাবে ব্যবহার করবেন হেয়ার প্যাক শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে নিন চুল। চুল ভাগ করে আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত লাগান হেয়ার প্যাকটি। শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে ঢেকে নিন চুল। ৪৫ মিনিট অপেক্ষা করে কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন চুল। সপ্তাহে কয়েকবার ব্যবহার করতে পারেন কলার হেয়ার প্যাক। যে কারণে ব্যবহার করবেন কলার হেয়ার প্যাক? কলাতে রয়েছে ভিটামিন এ, সি এবং ই। এসব উপাদান চুল ঝলমলে করে। প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে কলায় যা চুলের বৃদ্ধি বাড়ায়। চুল ঝলমলে ও সুন্দর করে। খুশকি দূর করে। চুলের আগা ফাটা রোধ করে। লেবুর অ্যাসিডিক উপাদ
অপরিষ্কার দাঁতে বাড়ে ব্রেন স্ট্রোকের ঝুঁকি!

অপরিষ্কার দাঁতে বাড়ে ব্রেন স্ট্রোকের ঝুঁকি!

সিএন নিউজ২৪.কম, অনলাইন ডেস্কঃ স্বাস্থ্য বিষয়ক টিপস । বিশ্বের প্রায় ২ কোটি মানুষ প্রতি বছর ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। দিনের পর দিন এই হার ক্রমেই বেড়ে চলেছে। গত বছর ভারতের দিল্লিতে আয়োজিত এক সম্মেলনে আন্তর্জাতিক স্নায়ু বিশেষজ্ঞরা জানান, পৃথিবীর প্রায় সর্বত্র ব্রেন স্ট্রোকে আক্রান্তের সংখ্যা খুব দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই ব্রেন স্ট্রোক হওয়ার নানা কারণ রয়েছে। তার মধ্যে মস্তিষ্কের রক্ত সঞ্চালনে বাঁধার সৃষ্টি হলে ব্রেন স্ট্রোক হয়। তবে আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞান বলছে, জীবনযাত্রায় পরিবর্তনের মাধ্যমে সহজেই এ ব্রেন স্ট্রোক ঠেকানো সম্ভব। সাম্প্রতিক একটি গবেষণায় স্ট্রোকের একটি নতুন কারণ বের হয়ে এসেছে। এতে বলা হয়েছে, দাঁত অপরিষ্কার থাকলে ব্রেন স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ে। জাপানের হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক এমনটিই দাবি করেন। গবেষণার ফল প্রকাশে তারা জানান, দাঁত অপরিষ্কার থাকলে দাঁতের ফাঁকে ব্যাকটেরি
ফরমালিন মেশানো আম চিনবেন কীভাবে? জেনে নিন উপায়

ফরমালিন মেশানো আম চিনবেন কীভাবে? জেনে নিন উপায়

দেশে এখন আমের ভরা মৌসুম। দেশে আম খেতে ভালবাসেন না, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার। গ্রীষ্মের দাবদাহের জ্বালা ভুলতে পারে যদি হিমসাগর, ফজলি, ল্যাংড়া বা আম্রপালি আমের মোলায়ম টুকরোয় পাত ভরা থাকে। কিন্তু আমের সঙ্গে শরীরে বিষ ঢুকছে না তো! উপাদেয় এই ফলটি দীর্ঘদিন ‘তাজা’ রাখতে ফরমালিন-সহ অন্যান্য ক্ষতিকারক রাসায়নিক পদার্থ মেশানো হয়। ফরমালিন মেশানো আম খেলে কিডনি, লিভার-সহ বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রবল। সেই সঙ্গে বিকলাঙ্গতা, এমনকি ক্যানসারেও আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই বেড়ে যায়। তাহলে কি আমও খাওয়া যাবে না! কী ভাবে বুঝবেন আমে ফরমালিন মেশানো আছে কিনা? ফরমালিন মেশানো আম চেনারও উপায় আছে। আসুন জেনে নেওয়া যাক। • প্রাকৃতিক ভাবে পাকা আমের বৃন্তে সুঘ্রাণ মিলবে। কিন্তু ফরমালিনযুক্ত আমের বৃন্তে কোনও ঘ্রাণ থাকবে না। তাই কেনার আগে গন্ধ শুঁকে দেখে নিতে পারেন। • আমের রং দেখেও চেনা যায় ফরমা
রাতে বিছানায় শুধু একটি লেবু! ফলাফল সাথে সাথে

রাতে বিছানায় শুধু একটি লেবু! ফলাফল সাথে সাথে

পাতিলেবুর গুণাগুণ নিয়ে ইতিমধ্যেই যথেষ্ট চর্চা হয়ে গিয়েছে। ভিটামিন ও অ্যাসিডের যথাযথ সমন্বয় একটি পাতিলেবুকে অব্যর্থ অ্যান্টিসেপ্টিক হিসেবে কাজ করতে সমর্থ করে, তা মানেন ডাক্তাররাও। পাতিলেবুর কিছু অসামান্য গুণের মধ্যে রয়েছে এগুলিও— ১. যাঁরা খুস্কির সমস্যায় ভুগছেন, তাঁরা চুলের গোড়ায় যদি পাতিলেবুর রস ম্যাসাজ করেন গোসলের মিনি়ট দশেক আগে, আর তারপর স্নান ও শ্যাম্পু করে নেন, তাহলে খুস্কির হাত থেকে মিলবে মুক্তি। ২. শরীরের যেসব জায়গায় চামড়া মোটা এবং শুষ্ক (যেমন গোড়ালি, কনুই, কিংবা হাঁটু) সেই সমস্ত জায়গায় পাতিলেবুর রস ঘষুন। দিন কয়েকের মধ্যেই দেখবেন চামড়া নরম হয়ে এসেছে। ৩. নিয়মিত লেবুর রসের শরবৎ পান করলে অতিরিক্ত মেদ ঝরে যাবে। কিন্তু সম্প্রতি অলটারনেটিভ মেডিসিন অ্যান্ড রিসার্চ সেন্টার অফ সি়ডনি একটি গবেষণায় জানিয়েছে, পাতিলেবুর রসের উপকারিতা পেতে সবসময় যে তা সেবন করতে হবে কিংবা শরীরে প্রয়োগ ক
হঠাৎ বুকে জ্বালা-পোড়া, আছে কি কোন ঘরোয়া উপায়?

হঠাৎ বুকে জ্বালা-পোড়া, আছে কি কোন ঘরোয়া উপায়?

আপনার স্বাস্থ্য ডেস্ক- বুকে জ্বালা-পোড়ার সমস্যায় ভোগেন অনেকেই। এর সাধারণ লক্ষণগুলো হলো গ্যাস, বমি বমি ভাব, শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া, মুখে কোন কিছুর স্বাদ না লাগা, পেটে ব্যথা হওয়া ইত্যাদি। তবে প্রায় সময়ই দেখা যায় বেশি ফ্যাটযুক্ত খাবার, ভাজা-পোড়া জাতীয় খাবার ও এসিডযুক্ত খাবার খেলে পেটে ব্যথা বা বুকে জ্বালা-পোড়া ভাব হয়ে থাকে। এই সমস্যা রোধ করতে আছে কিছু ঘরোয়া উপায়- ১. বেকিং সোডা খুব দ্রুত বুকের জ্বালা-পোড়া সমস্যা রোধ করে থাকে। এর প্রাকৃতিক অ্যান্টাসিড উপাদান কয়েক মিনিটের মধ্যেই বুকের জ্বালা-পোড়া সমস্যা দূর করে দেহকে যন্ত্রণা মুক্ত করে। এক গ্লাস পানিতে ১ চামচ বেকিং সোডা নিয়ে মিশিয়ে নিন। তাৎক্ষনিক ভাবে বুকের জ্বালা-পোড়া রোধ করতে এই পানীয়টি পান করুন। আপনি চাইলে এই পানীয়তে সামান্য লেবুর রসও মিশিয়ে নিতে পারেন। ২. পুদিনা পাতা কুচি করে এক কাপ পানিতে ভিজিয়ে রেখে ৩০ মিনিট পর্য
ঘর থেকে মশা তাড়ানোর ৫ উপায়

ঘর থেকে মশা তাড়ানোর ৫ উপায়

  অনলাইন ডেস্কঃ- ঘরে মশা তাড়াতে কত কিছু্ই না করে থাকেন আপনি। মশার স্প্রে, কয়েল ও ফ্যানের বাতাস। কিন্তু আপনার সব চেষ্টাই ব্যর্থ। মশা ঠিকই আপনার পিছু ছাড়ে না। ও সুযোগ পেলেই আপনাকে কামড়াবে। কীভাবে ঘরোয়া উপায়ে তাড়াবেন ঘরের মশা। ১. নিমপাতা কাঠ-কয়লার আগুনে নিমপাতা পোড়ালে যে ধোঁয়া হবে তা মশা তাড়ানোর জন্য খুবই কার্যকর। তাই সন্ধ্যার আগে ঘরে নিমপাতার ধোঁয়া দিতে পারেন। ২. রসুনের স্প্রে রসুনের স্প্রে মশা তাড়াতে খুবই বেশ কাজ করে। ৫ ভাগ পানিতে ১ ভাগ রসুনের রস মিশিয়ে ঘরে স্প্রে করুণ। এতে করে যে কোনো ধরনের মশা ও রক্ষচোষা আপনার ধারের কাছেও আসবে না। ৩. নারিকেলের আঁশ নারিকেলের আঁশ শুকিয়ে টুকরা করুন। একটি কাঠের পাত্রে রেখে জ্বলন্ত ম্যাচের কাঠি ধরুন। ৫-৬ মিনিটের মধ্যেই মশা দূর হবে। ৪. কেরোসিন তেল কেরোসিন তেল স্প্রে বোতলে নিন। কয়েক টুকরা কর্পূর মেশান। ভালো করে ঝাঁকিয়ে স
কো‌ন ডি‌মে পু‌ষ্টি বে‌শি, সাদা ডি‌মে না‌কি বাদা‌মি ডি‌মে ?

কো‌ন ডি‌মে পু‌ষ্টি বে‌শি, সাদা ডি‌মে না‌কি বাদা‌মি ডি‌মে ?

অনলাইন ডেস্কঃ- ডিম আমাদের সবার প্রাত্যহিক একটি খাবার। যেকোন ধরনের শুকনো খাবার যেমন রুটি, পাস্তা, চিনি- ইত্যাদি এই ধরনের খাবারের বেলায় আমরা মনে করি, সাদা রঙের চেয়ে বাদামি রঙের খাবার বেশি স্বাস্থ্যকর। কিন্তু বাদামি ডিম  নাকি সাদা রঙের ডিম বেশি স্বাস্থ্যকর - তা নিয়ে আমাদের অনেকের অনেক রকম মত আছে। আমরা অনেকেই মনে করে থাকি  সাদা ডিম বেশি স্বাস্থ্যকর। আবার কেউ কেউ ভাবেন বাদামি ডিম বেশি স্বাস্থ্যকর। আসলে সাদা রঙের পালক বা যেসব মুরগির কানের লতি সাদা রংয়ের সাধারণত সেসব মুরগি সাদা ডিম দেয় আর বাদামি রঙের পালক বা যেসব মুরগির কানের লতি বাদামি রংয়ের সেসব মুরগি বাদামি ডিম দেয়। বাজারে বাদামি ডিমের চেয়ে সাদা ডিম বেশি দেখা যায় কারণ সাদা পালকের মুরগির প্রজনন খরচ অনেক কম। আর সাদা মুরগি বাদামি রঙের মুরগির চেয়ে খায়ও কম। তাই সাদা মুরগির উৎপাদন বেশি তাই বাজারে সাদা ডিমও বেশি। আবার অনেকেই ভাব
সজ‌নে পাতার উপকা‌রিতা

সজ‌নে পাতার উপকা‌রিতা

আমাদের আশে পাশে অনেক জিনিস আছে যার গুনাগুণ সম্পর্কে আমাদের তেমন একটা ধারণা নাই। এরই মধ্যে একটি হলো সজনে পাতা। সজনে ডাটার গুনাগুণ সম্পর্কে কম বেশি সবাই জানলেও, সজনে পাতা সম্পর্কে জানেন না অনেকেই। আমরা অনেকেই সজনে খাই সবজি হিসেবে। কিন্তু এখনো অনেকেই জানেন না যে, সজনের সাথে সাথে সজনে পাতাও খাওয়া যায়। সেই এই সজনে পাতার আছে বহু রকমের ব্যবহার। আসুন আজ সজনে পাতার গুণাগুণ সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক: ১। বার্মিজ চিকিৎসকদের মতে সজনের পাকা পাতার টাটকা রস দু’বেলা খাবাবের ঠিক আগে ২-৩ চা চামচ করে খেলে উচ্চ রক্ত চাপ কমে যায়। তবে ডায়াবেটিস থাকলে তা খাওয়া নিষেধ। ২।সজিনার পাতার গুঁড়োরও বিশেষ গুণাগুণ রয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে এতে দুধের চেয়েও বেশি ক্যালসিয়াম ও ম্যাগনেসিয়াম, পটাসিয়াম ও জিংক রয়েছে। সজিনা পাতাকে শাক হিসেবে খাওয়া হয়। এতে তাদের শ্রমজনিত ক্লান্তি, শরীরের ব্যথা ইত্যাদি দূর হয়। ৩।সজ
পায়ের গোড়ালির ব্যাথা ও প্রতিকার

পায়ের গোড়ালির ব্যাথা ও প্রতিকার

আল্ আমিন শাহেদঃ যদি পায়ের গোড়ালির ব্যাথার কারণে আপনাকে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটতে হয় বা সকালে বিছানা থেকে কয়েক কদম পা ফেলতে গিয়েই যদি পায়ের তলায় ব্যাথা অনুভব করেন তাহলে বুঝতে হবে যে আপনার প্ল্যানটার ফেসাইটিস হয়েছে। আমাদের পায়ের তলায় যে কানেক্টিভ টিস্যু থাকে তাকে প্ল্যানটার ফেসিয়া বলে। এই প্ল্যানটার ফেসিয়া নামক সংযোগকারী কলার ইনফ্লামেশন বা প্রদাহের জন্যই প্ল্যানটার ফেসাইটিস বা পায়ের গোড়ালির ব্যাথা হয়। এটা মারাত্মক কোন সমস্যা না। তবে এটা অনেক বেশি পীড়া দায়ক একটি সমস্যা। কিন্তু সুখবর হচ্ছে- এই সমস্যা প্রতিরোধের সহজ কিছু উপায় আছে।আসুন আমরা জেনে নেই যন্ত্রণাদায়ক সমস্যাটির আরো কিছু কারণ ও এর প্রতিকার সম্পর্কে। কেনো হয় প্ল্যানটার ফেসাইটিস ? হাফিংটন পোষ্টকে ডাইনামিক ফিজিক্যাল হেলথ এর কাইরো প্র্যাকটিস ফিজিসিয়ান ডাক্তার এরিক করজেন বলেন, “বিভিন্ন কারণে প্ল্যানটার ফেসাইটিস হতে পারে।“ করজেন
কফ ও খোসপাঁচড়া দূর করে নিমপাতা!

কফ ও খোসপাঁচড়া দূর করে নিমপাতা!

অনলাইন ডেস্কঃ- ভেষজ উদ্ভিদের নামের তালিকায় সবসময় নিমপাতা শীর্ষে থাকে। অনেকে বলে থাকেন সর্বরোগের ঔষধ হল এই নিমপাতা। শতশত বছর ধরে আয়ুর্বেদিক ঐতিহ্যে নিমপাতার হরেক রকমের ব্যবহার হয়ে আসছে। নিমপাতার বিভিন্ন ধরণের কার্যকারিতা নিম্নে আলোচনা করা হলো: ১। কফজনিত বুকের ব্যথা: অনেক সময় বুকে কফ জমে বুক ব্যথা করে। এ জন্য ৩০ ফোঁটা নিমপাতার রস সামান্য গরম পানিতে মিশিয়ে দিনে ৩-৪ বার খেলে বুকের ব্যথা কমবে। গর্ভবতী, শিশু ও বৃদ্ধদের জন্য এ ওষুধটি নিষেধ। ২। কৃমি : পেটে কৃমি হলে শিশুরা রোগা হয়ে যায়। চেহারা ফ্যাকাসে হয়ে যায়। এ জন্য ৫০ মিলিগ্রাম নিমগাছের মূলের ছালের গুঁড়ো দিনে তিনবার সামান্য গরম পানিসহ খেতে হবে। ৩। উকুন নাশ : নিমের পাতা বেটে হালকা করে মাথায় লাগান। ঘণ্টাখানেক পর মাথা ধুয়ে ফেলুন। ২-৩ দিন এভাবে লাগালে উকুন নাশ হবে বা মরে যাবে। ৪। অজীর্ণ : অনেক দিন ধরে পেটের অসুখ। পাতলা পায়খান
রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ও কোষ্ঠকাঠিন্য উপশমে মুলা

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ও কোষ্ঠকাঠিন্য উপশমে মুলা

অনলাইন ডেস্কঃ- শীতকাল মানেই সবজির মেলা। ফুলকপি, বাঁধাকপির সঙ্গে বাজারে জমিয়ে বসেছে মুলাও। অনেকেই গ্যাসের ভয়ে অনেকেই মুলাকে এড়িয়ে চলেন। কিন্তু জানেন কি, এই মুলার রয়েছে অসাধারণ গুণাগুণ। আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনে মুলার গুণ সম্পর্কে অল্প বিস্তর আলোচনা- ১। মুলা খেলে দূর হয় কোষ্ঠকাঠিন্য। ফলে দূরে থাকে পাইলস। ২। ওজন কমাতে সাহায্য করে মুলা। কেননা মুলা খেলে সহজেই পেট ভরে। ফলে শরীরের মেটাবলিজম যেমন বাড়ে, তেমনই কমে ওজন বাড়ার সম্ভাবনা। ৩। মুলায় রয়েছে পটাশিয়াম। পটাশিয়াম রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। ৪। মুলা খেলে শরীরে মূত্র উৎপাদন বে়ড়ে যায়। মূত্রের সঙ্গে শরীরের টক্সিন বেরিয়ে যায়। ফলে ইউরিনারি ট্র্যাকে জ্বালা কমায়। ৫। পোকার কামড়েও ভাল কাজ দেয় মুলা। কামড়ের জায়গায় মুলার রস লাগালে ফোলা কমে। ব্যথারও নিরাময় হয়। ৬। জন্ডিসের চিকিৎসাতেও কাজে আসে মুলা। জন্ডিসে বিলিরুবিন বেড়ে যা
বৃদ্ধ বয়সে বাগান করা স্বাস্থ্যকর

বৃদ্ধ বয়সে বাগান করা স্বাস্থ্যকর

সিএন নিউজ লাইফস্টাইল ডেস্কঃ– এক গবেষণায় দেখা যায়, যেসকল বৃদ্ধা প্রতিদিন তিন ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে বিভিন্ন গৃহস্থালি কাজ এবং রাতে সাত ঘণ্টারও কম বা বেশি সময় ঘুমান, তাদের স্বাস্থ্য ভালো থাকার সম্ভাবনা কম। তবে একই কাজ একজন বৃদ্ধের উপর এই প্রভাব ফেলে না। ডেইলি মেইল গবেষণাটির বরতা দিয়ে জানায়, “এর কারণ হল একজন বৃদ্ধা বেশিরভাগ সময় পার করেন একই ধরনের কাজ করে। অপরদিকে বাগান পরিচর্যা ও গৃহস্থালি রক্ষণাবেক্ষণের কাজে ব্যস্ত থাকা একজন বৃদ্ধ বিভিন্ন ধরনের কাজ করেন, যা মানসিকভাবে উদ্দীপক।” জার্মানির ‘লাইবনিৎজ ইনস্টিটিউট ফর প্রিভেনশন রিসার্চ অ্যান্ড এপিডেমিওলজি’ নামক গবেষণা কেন্দ্রের গবেষক নিকোলাস আদ্জেই বলেন, “লিঙ্গ ভেদে সুস্বাস্থ্যের বিষয়টা নির্ভর করে কোন লিঙ্গের মানুষ কী কাজ করছেন তার উপর। একজন নারীর একই কাজ করতে হয় প্রতিনিয়ত- যেমন রান্না করা, ঘর পরিষ্কার করা ইত্যাদি। যার কোনো স্বাস্থ্যগ
পা ক্রস করে বসার অপকারিতা

পা ক্রস করে বসার অপকারিতা

সিএন নিউজ স্বাস্থ্য ডেস্কঃ-- পা ক্রস করে বসার ভঙ্গিমা অনেকের কাছে খুবই আরামদায়ক। তাই যতই আরামদায়ক হোক না কেন এভাবে বসার অভ্যাস ডেকে আনতে পারে নানাবিধ শারীরিক সমস্যা। অনেকক্ষণ ধরে পা ক্রস করে বসে থাকলে শরীরের রক্তচাপ বেড়ে যায়। তবে এ ক্ষেত্রে উচ্চ রক্তচাপ হবার সম্ভাবনা হৃদরোগে আক্রান্ত রোগীদের বেশি হয়। কোনো এক ভঙ্গিমায় অনেকক্ষণ ধরে বসে থাকলে স্নায়ুর প্যারালাইসিস বা নার্ভ পলসি হতে পারে। আর এ সমস্যা বেশি প্রকট হতে পারে পা ক্রস করে দীর্ঘ সময় বসে থাকলে। অনেক সময় শিরায় চাপ পড়ে ভেরিকোস ভেইন বা স্পাইডার ভেইনের সমস্যা হতে পারে। পা বেশিক্ষণ ক্রস থাকলে উরুর ভিতরের দিকের পেশি ছোট থাকে এবং বাইরের দিকে পেশি টানটান হয়ে থাকে। ফলে উরুর মাংসে স্পাসম হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। প্রতি দিন ৩ ঘণ্টার বেশি সময় পা ক্রস করে বসলে কোমর, ঘাড়, নিতম্বের হাড়ে ব্যথা হতে পারে- যা থেকে ধীরে ধীরে কুঁজো হয়ে যাওয়ার সমস্যা
ক্যান্সার সচেতনতায় ইবি ‘ক্যাপ’র উঠান বৈঠক

ক্যান্সার সচেতনতায় ইবি ‘ক্যাপ’র উঠান বৈঠক

সিএন নিউজ ই.বি. প্রতিনিধি, এম.এইচ. কবিরঃ-- ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) এর স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “ক্যাপ” ( ক্যান্সার অ্যাওয়ারনেস গ্রোগরাম ফর উইমেন) এর উদ্দ্যোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশ্ববর্তী এলাকায় পদমতি গ্রামে ক্যান্সারের সচেতনতা নিয়ে উঠান বৈঠক করেছে সংগঠনটি। সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) বেলা ১২ টার দিকে ঝিনাইদহ জেলায় শৈলকূপা উপজেলার অাওতাধীন পদমতি গ্রামে এই উঠান বৈঠকের অায়োজন করে।“যদি ক্ষতির কারণ লজ্জা হয়, তাহলে অার লজ্জা নয়” এই স্লোগান নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বেচ্ছাসেবী এই সংগঠনটি।স্কুল,কলেজ, বস্তি, গার্মেন্টসে সচেতনতার পর গ্রামের সাধারণ মা বোনদের সচেতনত করার উদ্দেশ্যে ক্যাপ উঠান বৈঠক নামের সচেতনতা প্রোগ্রাম শুরু করেছে। ঝিনাইদহ জেলার শৈলকূপা উপজেলার পদমতি গ্রামের নারীদের মাঝে স্তন ক্যান্সার ও জরায়ুমুখ ক্যান্সার সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে “ক্যাপ কুষ্টিয়া জোন” (ইসলামী বিশ্ববি
শীতে পা ফাটা রোধের উপায়

শীতে পা ফাটা রোধের উপায়

সিএন নিউজ স্বাস্থ্য ডেস্কঃ-  বাংলায় একটা প্রবচন আছে, কোনো নারী কতোটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও গোছানো স্বভাবের সেটা জানতে হলে তার পায়ের গোড়ালি লক্ষ করতে বলা হয়। এই ব্যাপারে এটা ভাবা হয়ে থাকে যে যে নারীর পা ও পায়ের গোড়ালি পরিষ্কার তার স্বভাবও হয় পরিষ্কার ও গোছানো স্বভাবের। তবে শীত এলেই পা ফাটা নিয়ে সমস্যায় পড়তে হয়। ফাটা পা দেখতেও বিশ্রী লাগে। সবটুকু সৌন্দর্য নষ্ট করে দেয়ার জন্য একজোড়া ফাটা পা-ই যথেষ্ট। পা ফাটা নিয়ে বিব্রত হতে হবে বলে অনেকে ঘর থেকেই বের হতে চান না। কিন্তু ঘরে বসে থাকা তো আর সমাধান নয়। একটু সচেতন হয়ে যত্ন নিলেই এই শীতেও পা থাকবে কোমল ও পরিষ্কার। চলুন জেনে নিই, পা ফাটা দূর করার কয়েকটি কার্যকর উপায় পা ফাটার কারণ: ১. খালি পায়ে ঘোরার ফলে পায়ে এক ধরনের ফাঙ্গাস তৈরি হয়। এই ফাঙ্গাসটাই ধীরে ধীরে বেড়ে পায়ের গোড়ালিতে ছড়ায়। আর এর ফলেই পা ফেটে যায়। ২. আমরা বাড়িতে সাধ
আলকুশির ঔষধিগুণ

আলকুশির ঔষধিগুণ

মোঃ আল আমিন আলকুশি আমাদের বন-পাহাড়ে মোটামুটি সহজলভ্য। ইংরেজি নাম ভেলভেট বিন। একসময় লোকালয়ের ঝোপজঙ্গলেও অঢেল ছিল, এখন নেই বললেই চলে। তবে প্রাচীনকাল থেকেই এটি ঔষধি গাছ হিসেবে পরিচিত। রাজনিঘণ্টুতে এ গাছের উল্লেখ আছে। ভারতীয় বনৌষধি গ্রন্থেও এ গাছের অসংখ্য কার্যকর ব্যবহারের কথা উল্লেখ হয়েছে। গাছের স্বাদুরস বায়ু ও ক্ষয়নাশক, রক্তদোষ ও ব্রণনাশক। বীজ ভেঙে মাষকলাইয়ের সঙ্গে জুস বানিয়ে খেলে শারীরিক সক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। তা ছাড়া গাছের পরিপকস্ফ বীজ, শাক ও মূল বাতজ্বর এবং কৃমি প্রতিরোধে কার্যকর। বিছার কামড়ে বীজগুঁড়া ব্যবহারে সুফল পাওয়া যায়। গাছটি পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলে পশুখাদ্য হিসেবে ব্যবহার্য। ফল এক সময় কফির বিকল্প হিসেবে ব্যবহৃত হতো।  আলকুশি (গঁপঁহধ ঢ়ৎঁৎরবহং) বর্ষজীবী লতা, কখনও কখনও বহু বর্ষজীবী হতে পারে। প্রতি বছরে ১৫ মিটারের মতো লম্বা হয়। লতা ও পাতা শিমগাছের মতো। পত্রিকা প্রায় সাড়ে ১২ মিমি লম্ব
শীতের দিনে খেজুর খেলে কি হয় জানেন ?

শীতের দিনে খেজুর খেলে কি হয় জানেন ?

সিএন নিউজ স্বাস্থ্য ডেস্কঃ-  খেজুরকে ন্যাচারাল এনার্জি বল। কারণ মাত্র চারটি খেজুর আপনাকে যে পরিমাণ এনার্জি দেবে তা অন্য কোনো ফল থেকে পাবেন না। খেজুর এমন একটি শুকনো, মিষ্টি ফল যা আসলেই স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। খেজুরের স্বাস্থ্য উপকারিতা প্রচুর বলে খেজুর খাওয়া ভালো, বিশেষ করে শীতের দিনে। খেজুরে অত্যাবশ্যকীয় পুষ্টি উপাদান যেমন- ভিটামিন, ক্যালসিয়াম, আয়রন, পটাসিয়াম, ন্যাচারাল গ্লুকোজ এবং ফাইবার থাকে যা শরীরকে উষ্ণ রাখার জন্য প্রয়োজনীয়। খেজুর খেলে প্রচুর শক্তি পাওয়া যায় বলে মুসলিম সম্প্রদায় ইফতারের সময় খেজুর খায়। শীতের সময়েও কেনো খেজুর খাবেন সে কারণগুলো জেনে নিই চলুন। ঠাণ্ডা নিরাময়ে সাহায্য করে যদি আপনি ঠাণ্ডার সমস্যায় ভোগেন তাহলে ২-৩ টি খেজুর, কয়েকটি গোলমরিচ এবং ১-২ টি এলাচ পানিতে দিয়ে সিদ্ধ হতে দিন। ঘুমাতে যাওয়ার আগে এই দ্রবণটি পান করুন। এটি ঠাণ্ডা নিরাময়ে সাহায্য করবে। অ্যাজম
করিলে রক্ত দান, বাঁচিবে অনেক প্রাণ।

করিলে রক্ত দান, বাঁচিবে অনেক প্রাণ।

রক্ত দিন জীবন বাচান(স্বপ্নবাজ ফাউন্ডেশন) রক্তদান অাত্নমানবতার মহৎ সেবা। একমাত্র মানুষেই পারে মানুষকে রক্ত দিতে। -------------------------------------------------------------প্রতিনিয়ত  সড়ক দুর্ঘটনা, বিভিন্ন অপারেশন, অাগুনে পোড়া, থ্যামাসিমিয়া ও লিউকামিয়া আক্রান্ত এবং অনেক কারনে রক্তের প্রয়োজন হয়। অনরাধ সবার রক্তের গ্রুপ জেনে নিন। কেউ বিপদে পড়লে  তাদের পাশে দাড়াবেন। একজন সুস্থ মানুষ: ১৮-৫৫ বছর প্রতি ৩ মাস পর রক্ত দিতে পারে। নিজে রক্ত দিন, অন্যকে রক্ত দানে,উৎসাহিত করুন। অাপনার এই এক ব্যাগ রক্ত কোন অসহায় মানুষের জন্য দান করেন তাহলে হয়ত বেচেঁ যেতে পারে একটি জীবন । যদি আপনার ইচ্ছে থাকে অন্তত একটি জীবন বাচাঁতে চান, তাহলে দয়া করে আপনার রক্তের গ্রুপ এবং মোবাইল নাম্বার সহ আমাদের সাথে শেয়ার করতে পারেন। আপনার গ্রুপের রক্তের প্রয়োজন হলে আমরা অবশ্যই আপনার সাথে যোগাযোগ করে রক্ত ম্যানেজ করে দি
শীত আসছে, প্রস্তুত তো?

শীত আসছে, প্রস্তুত তো?

মোঃ আল আমিন ♦শীত দোরগোড়ায়। রাতভর কুয়াশা থাকে। আসে শিশিরভেজা ভোর। বাতাসে শুষ্কতা, যা ত্বকে টানটান একটা ভাব এনে দেয়। চুলও পড়ছে কারও কারও। শীত মানেই শুষ্কতা। তাই ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে প্রচুর পানি পান করা দরকার। মুখ ধোয়ার পর ও রাতে ঘুমানোর আগে ভালো করে ময়েশ্চারাইজার ক্রিম লাগালে কিছুটা উপকার পাওয়া যায়। চাইলে অলিভ ওয়েলও লাগাতে পারেন। আরও ভালো হয় ত্বক খানিকটা ভেজা ভেজা থাকতেই এসব লাগাতে পারলে। শীতের একটা বড় সমস্যা ধুলোবালু। চুলের গোড়ায় এ সময় বেশি ময়লা জমে। তাই নিয়মিত শ্যাম্পু করা দরকার। খুশকি হলে ভালো কোনো খুশকিনিরোধক শ্যাম্পু ব্যবহার করা দরকার। শীত থেকে বাঁচতে অনেকে গরম পানি দিয়ে গোসল করেন। তবে বেশি গরম পানি ত্বককে আরও শুষ্ক করে দেয়। তাই হালকা গরম পানি দিয়ে গোসল করা ভালো। শুধু বাইরের যত্নই নয়; ত্বক ভালো রাখতে খাবারের ধরনেও বদল দরকার। প্রচুর পানি পান করতে হবে। শীতের নানা ধরনের সবজি, যেমন
সুপারি  যমের বাড়ি

সুপারি যমের বাড়ি

অনলাইন ডেস্কঃ- সুপারি চিবিয়ে কষ কষ মুখে কী যে সুখ, তা তাঁরাই জানেন। এতে দাঁতের চেহারা তো বদলে যায়ই, পিচিক করে মারা মুখের রস যেখানটায় পড়ে, এর রংটাও আর দর্শনযোগ্য থাকে না। এ দৃশ্য পাপুয়া নিউগিনির। এখানে সুপারির জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মুখের ক্যানসারও। আর এ পরিস্থিতি সামাল দিতে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে দেশটির সরকারকে। স্থানীয়ভাবে একে বলা হয় বুয়াই। পাপুয়া নিউগিনির লোকজনের বেশির ভাগেরই জীবন চলে সুপারি বিক্রি করে। স্থানীয়ভাবে জাতীয় এই অর্থকরী উপাদানকে ‘সবুজ সোনা’ বলা হয়। এটি পুরোপুরি করমুক্ত। স্থান, কাল ও চাহিদা অনুযায়ী একটি সুপারি ও সরষের স্টিক ৬ সেন্টস থেকে দেড় ডলারে বিক্রি হয়। ইস্ট নিউ ব্রিটেন প্রদেশে বার্ষিক সাংস্কৃতিক উৎসবে সবখানেই দেখা গেল, সবাই আচ্ছা করে সুপারি চিবোচ্ছে। সেখানে বাইনিং পাহাড়ি এলাকা থেকে পাঁচ সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে এসেছিলেন ফিলোমেনা নামের এক নারী। সন
যে কাঁদতে চায়, তাকে কাঁদতে দিন!

যে কাঁদতে চায়, তাকে কাঁদতে দিন!

মো মোশারফ হোসেন (রায়হান) কাউকে কাঁদতে দেখলেই আমরা মনে করি, নিশ্চয় মানুষটা খুব কষ্টে আছে। তাইতো আর সময় নষ্ট না তার কান্না থামাতে লেগে পরি। এমনটা করা কিন্তু একেবারেই উচিত নয়। মনে রাখবেন, কান্না মানেই সবসময় দুঃখ কিংবা খারাপ কিছু নয়। আনন্দের অতিশার্যেও মানুষ কেঁদে ফেলে। তাই যে কাঁদছে তাকে বরং আরও বেশি করে কাঁদতে দিন। একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে, কাঁদার সময় আমাদের শরীরের একাধিক উপকার হয়ে থাকে, যা নানাবিধ রোগকে দূরে রাখতে ভূমিকা রাখে। আর গবেষকরা বলেছেন, আসলে কেউ যখন কান্নাকাটি করে তখন শরীরের অন্দরে নানা পরিবর্তন হতে থাকে, যে কারণে নানা সুফল পাওয়া যায়। কান্নার আরও নানা উপকারিতা- ক্ষতিকর টক্সিন বেরিয়ে যায় সারাদিন নানাভাবে কিংবা নানা কারণে আমাদের রক্তে ক্ষতিকর টক্সিক উপাদান মিশে থাকে। এসব ক্ষতিকর উপাদানগুলিকে যদি দেহ থেকে বার না করে দেওয়া যায়, তাহলে শরীরের উপর মারাত্নক কুপ্রভাব পরে। এ
নাক দিয়ে রক্ত পড়া বন্ধে যা করবেন

নাক দিয়ে রক্ত পড়া বন্ধে যা করবেন

সিএন নিউজ২৪ স্বাস্থ্য ডেস্কঃ-  নাক দিয়ে রক্ত পড়া খুব সাধারণ একটি সমস্যা না হলেও অনেকের ক্ষেত্রেই হয়ে থাকে। আমাদের দেহের নাকের ভিতরের রক্ত প্রবাহের নালীটি খুবই ক্ষুদ্র এবং নাক দেহের সবচেয়ে বেশি সেনসেটিভ অঙ্গ। যখনই নাকের এই রক্ত প্রবাহের নালীতে কোনো সমস্যা দেখা দেয় তখনই নাক দিয়ে রক্ত পড়ে। মাঝে মাঝে নাকের দুটো ছিদ্র দিয়েই রক্ত বের হয়ে থাকে। নাক দিয়ে রক্ত প্রবাহের সমস্যা কয়েক সেকেন্ড হতে শুরু করে ১০ মিনিট পর্যন্তও স্থায়ী হয়ে থাকে। এই সমস্যাটি হওয়ার কিছু কারণ হল- মাথাঘোরা, শারীরিক দুর্বলতা, অত্যধিক মানসিক চাপ, মাথায় আঘাত পাওয়া এবং অনেক সময় অজ্ঞান হয়ে গেলেও নাক দিয়ে রক্ত প্রবাহ হয়ে থাকে। যেকোনো ব্যক্তিরই নাক দিয়ে রক্তপ্রবাহ হতে পারে তবে বিশেষ করে ২ থেকে ১০ বছরের বাচ্চা এবং ৫০ থেকে ৮০ বছরের প্রাপ্ত বয়স্ক ও বৃদ্ধদের মধ্যে নাক দিয়ে রক্ত প্রবাহের সমস্যা বেশি দেখা যায়। নাক দিয়ে রক্ত প্রবাহে
নাঙ্গলকোটে অসহায়দের মাঝে ফ্রি চক্ষু শিবির ও ঔষধ বিতরণ

নাঙ্গলকোটে অসহায়দের মাঝে ফ্রি চক্ষু শিবির ও ঔষধ বিতরণ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ- সিএন নিউজ২৪.কম নাঙ্গলকোট প্রবাসী কল্যাণ ইউনিটের সাধারন সম্পাদক সিএন নিউজ২৪ ডট'কমের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা বর্ণমালা সামাজিক সংঘের উপদেষ্টা ও সুইজারল্যান্ড প্রবাসী হাছানুজ্জামান (দাদা ভাই) এর উদ্যোগে নাঙ্গলকোট উপজেলার হেসাখাল ইউনিয়নের দায়েমছাতী বাজার এস.এম জামাল ফার্মেসীতে অসহায় দুঃস্থ চক্ষু রোগীদের মাঝে ফ্রি চক্ষু শিবির ও ঔষধ বিতরণের আয়োজন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন বর্ণমালা সামাজিক সংঘের সভাপতি মেসলেহ উদ্দিন (নয়ন) সাধারন সম্পাদক জাবের মাহমুদ, সিএন নিউজ২৪.কমের নির্বাহী সম্পাদক আব্দুল হালিম (দুলাল), সম্পাদক রবিউল হোসাইন (রাজু) ফখরুল ইসলাম, মাহবুব মিয়াজী, জামাল উদ্দিন, রিয়াজ, মামুন প্রমূখ।
প্রতিদিন কম ঘুমালে যেসব সমস্যা অনিবার্য

প্রতিদিন কম ঘুমালে যেসব সমস্যা অনিবার্য

সিএন নিউজ২৪ স্বাস্থ্য ডেস্কঃ-  কাজের চাপে কম ঘুমোচ্ছেন। সকালে তাড়াতাড়ি উঠছেন আবার রাতেও দেরি করে ঘুমোতে যাচ্ছেন। কখনও ৫ ঘণ্টা ঘুমোচ্ছেন আবার কখনও ৬ ঘণ্টা। ফলে অফিসে গিয়েও ঠিকমত কাজ করতে পারছেন না, ঝিমুনি আসছে। সবকিছু মিলিয়ে রাতে ঠিকঠাক ঘুম না হলে, পরের দিনটার সব কিছুতেই সমস্যা হয়। কিন্তু ঘুম না হলে আপনার শরীরের কতটা ক্ষতি হয় তা হয়তো জানেন না। গবেষকদের একাংশ বলছেন, প্রতিদিন যদি পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুম না হয়, তাহলে তার প্রভাব পড়বে আপনার স্বাস্থ্যের উপর। অর্থাৎ, দিনের পর দিন ঘুম কম হলে ওজন বেড়ে যাবে। ৮ ঘণ্টার কম ঘুমালে ওজন খুব দ্রুত বেড়ে যাবে। ১। ঘুম কম হলে যেমন দুর্বল লাগতে শুরু করবে তেমনি মেজাজও যাবে বিগড়ে। ঘুম কম হলে কাজেও ঘাটতি পড়ে। ২। শরীর সুস্থ রাখতে ৮ ঘণ্টা টানা আপনাকে ঘুমোতেই হবে। না হলে মানসিক অস্থিরতায়ও ভুগতে হতে পারে বলেও মনে করছেন গবেষকরা। ৩। ঘুম কম হলে হৃদ রোগের স
অনেক বেশি ঘাম হওয়া যেসব রোগের উপসর্গ

অনেক বেশি ঘাম হওয়া যেসব রোগের উপসর্গ

খুব গরম পড়লে অথবা খুব পরিশ্রম করলে ঘাম হওয়াটা স্বাভাবিক। কিন্তু অযথা যদি ঘাম হয় তাহলে চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। অনেকেই আছেন যারা ঘামেন বেশি। এমনকি বসে বসেই অনেকেরই হাত ঘেমে যায়, আবার অনেকের পা-ও ঘেমে যায়। আমরা এই ব্যাপারগুলিকে খুব একটা পাত্তা দিই না। কিন্তু চিকিৎসকরা বলছেন, এই অতিরিক্ত ঘাম হওয়া বিভিন্ন রোগের উপসর্গ। আমাদের আজকের এই প্রতিবেদনে অতিরিক্ত ঘাম যে বিশেষ কিছু রোগের উপসর্গ প্রকাশ করে সেই সম্পর্কে জানব- ১। রক্তের শর্করার ওঠনামা করা ডায়াবেটিসে খুব স্বাভাবিক। ডায়াবেটিস রোগে স্নায়ুর ক্ষতি হয়। এসব কারণে এই রোগীদের প্রচুর ঘাম হতে পারে। তাই অযথা ঘাম হলে, প্রথমেই রক্তের শর্করা পরীক্ষা করুন। দরকার পড়লে চিকিৎসকের সাহায্য নিন। ২। যখন হার্ট রক্ত পাম্প করতে অসুবিধা বোধ করে, তখন অনেক বেশি চাপ বোধ হয়। এটি অতিরিক্ত ঘামের কারণ হয়। বেশি ঘাম হৃদরোগের একটি লক্ষণ। চিকিৎসকের মতে, বিন
খালি পেটে রসুন খাওয়ার যত উপকারিতা !

খালি পেটে রসুন খাওয়ার যত উপকারিতা !

মুহিব্বুল্লাহ আল হোসাইনী -------------------------------------------------------- অনেকের কাছেই সকালে খালি পেটে কাঁচা রসুন খাওয়াটা ভীষণ অস্বাস্থ্যকর মনে হতে পারে। কিন্তু খালি পেটে রসুন খাওয়া দেহের জন্য ভীষণ স্বাস্থ্যকর একটি ব্যাপার। খালি পেটে রসুন খেলে এমন কিছু উপকার হয়, যেটা অন্য খাবারের সাথে রান্না করা অবস্থায় খেলে হয় না। এটি শুধু বিভিন্ন ধরণের রোগ দূরই করে না, পাশাপাশি বিভিন্ন রোগের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতাও বৃদ্ধি করে। তবে আর দেরি না করে চলুন জেনে নেই খালি পেটে রসুন খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে। উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে: অসংখ্য মানুষ যারা উচ্চ রক্তচাপের শিকার তারা দেখেছেন, রসুন খাওয়ার ফলে তাদের উচ্চ রক্তচাপের কিছু উপসর্গ উপশম হয়। রসুন খাওয়ার ফলে তারা শরীরে ভাল পরিবর্তন দেখতে পায়। শরীরকে ডি-টক্সিফাই করে: অন্যান্য ঔষধের তুলনায় শরীরকে ডি-টক্সিফাই করতে রসুন কার্যকরী ভূমি